Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  মূল রচনাবলীঃ  ||  ১০ম বর্ষ ২য় সংখ্যা জ্যৈষ্ঠ ১৪১৭ •  10th  year  2nd  issue  May - Jun  2010 পুরনো সংখ্যা
বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যালোচনা (গ্রুপ জি) Download PDF version
 
বিশ্বকাপ 
ফুটবল 
২০১০

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যালোচনা

জহিরুল ইসলাম নাদিম

গ্রুপ জি

বাদ পড়বে কে?

এই গ্রুপটিকে মনে হচ্ছে এবারকার বিশ্বকাপের সবচাইতে কঠিন গ্রুপদ্বিতীয় পর্বে ওঠার তিনজন যোগ্য দাবীদার কিন্তু টিকেট আছে মাত্র দুটিতার মানে একজনকে হতাশ হয়ে বাড়ির টিকেট কাটতে হবেব্রাজিল, আইভরি কোস্ট এবং পর্তুগাল প্রত্যেকেরই মনে আশা যে বিশ্বকাপের ১৯ তম পর্ব নিজেদের করে নেবেযদি উত্তর কোরিয়া কাউকে ধাক্কা দিয়ে দিতে পারে তাহলে একটি দল নয় মোট দুটি দলকেই হতাশ হয়ে বাড়ি ফেরার প্লেন ধরতে হবেশুধু সে কারণেই এই গ্রুপটি টাফ তাই নয় এখানে অন্তত তিনজন হেভিওয়েট ফুটবলার আছেন যাদের দেখার জন্য সারা পৃথিবী মাঠে নেমে পড়তে পারেএঁরা হলেন কাকা, দিদিয়ের দ্রগবা আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোএই গ্রুপের ৫৪০ মিনিটের ফুটবল মানুষের হৃদয়ের মণিকোঠায় লেখা থাকার কথা বহুদিন

_____________________________________________________________

টপ ফেভারিট

ব্রাজিল: রেকর্ড পাঁচ বারের শিরোপা জয়ীরা আবারও অপ্রতিরোধ্য আর অদ্বিতীয় হয়ে উঠেছে কোচ দুঙ্গার সার্থক যতেœকোপা আমেরিকা আর ফিফা কনফেডারেশনস কাপ জয়ী ব্রাজিল দল আফ্রিকার মাটিতে পা রাখবে সেরাদের মতইবাছাই পর্বে তারাই ছিল শীর্ষস্থানেতাদের গোল রক্ষক জুলিয়াস সিজার বর্তমানে বিশ্বসেরা গোলকীপারকাকা বিশ্বসেরা সেরা প্লে মেকারএছাড়া মেসিওন, রবিনহো এবং লুইস ফ্যাবিয়ানোর খেলোয়াড় থাকায় ব্রাজিল দলটি আবারও বিশ্বসেরা হওয়ার দৌড়ে এগিয়েই আছে

পর্তুগাল: কার্লস কুয়েইরজ এর দল বাছাই পর্বে হয়তো তেমন ভাল করতে পারেনি, বিশ্বকাপেই এসেছে প্লে অফে বসনিয়া হার্জেগোভিনার মত যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে হারিয়েতবু  আফ্রিকায় জন্ম নেয়া এই কোচের ক্ষমতা আছে ভাল কিছু করে দেখাবারঅবশ্য ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ওপর নির্ভর করছে অনেক কিছু কারণ তিনি একাই টলিয়ে দিতে পারেন যে কোনো ম্যাচের ভারসাম্যদলে ব্রাজিল বংশোদ্ভূত প্লেয়ার যেমন পেপে, ডেকো বা লিডসন খেলতে পারেন- তখন মজাটা আরো জমবেব্রাজিলীয় বনাম ব্রাজিল বংশোদ্ভুত খেলোয়াড়দের মোকাবেলা

আউটসাইডার

কোট দ্য আইভরি (আইভরি কোস্ট): আইভরিয়ানদের খাটো করে দেখার সুযোগ নেই কেননা গত বিশ্বকাপে তারা আর্জেন্টিনা আর হল্যান্ডকে ভালই ভুগিয়েছিলশেষ পর্যন্ত সামান্য গোলের ব্যবধানে জিতলেও দলগুলো টের পেয়েছে আইভরিয়ানরা কী করতে পারেগতবার তারা যেখানে শেষ করেছে এবার হয়তো সেখান থেকেই সামনে এগোনো শুরু করবেকলো টোরে, তার ভাই ইয়াইয়া, সলোমন কালৌ এবং অবশ্যই বিশ্বসেরা ফরোয়ার্ড দ্রগবাকে নিয়ে গড়া দলটি বাছাই পর্বে একটি খেলাতেও না হেরে আফ্রিকায় এসেছেএবার নিজেদের নামের প্রতি সুনাম করতে দলটি ষোলর পর্বে উঠতে আগ্রহী

 

কোরিয়া ডিপিআর: উত্তর কোরিয়ার বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করাটাই একটা বড় ঘটনারাউন্ড অব সিক্সটিনে যেতে হলে বেশ কিছু অসাধ্য সাধন করতে হবে এই এশিয়ান দলটিকেতবে অঘটন ঘটানোটা তেমন একটা নতুন নয় তাদের কাছেবিশ্বকাপের ইতিহাসে অন্যতম বড় আপসেট জন্ম দিয়েছিল এই কোরিয়া দলটি যখন ১৯৬৬ এর বিশ্বকাপের এক খেলায় ইতালীকে ১-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে চলে গিয়েছিলসেখানে এক তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ খেলায় পর্তুগালের কাছে ৫-৩ গোলে হেরে সেমিতে ওঠা হয়নি তাদেরঅসাধারণ প্রতিভাবান ফরোয়ার্ড জং তে সে কোরিয়ার শেষ ভরসা যার পা ধরে দলটি আরেকটি অঘটন ঘটানোর স্বপ্ন দেখতে পারে

যারা নজর কাড়বেন

কাকা, লুইস ফেবিয়ানো (ব্রাজিল), ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, লিডসন (পর্তুগাল), দিদিয়ের দ্রগবা (আইভরি কোস্ট), জং তে সে (উঃ কোরিয়া)

জমাট উত্তেজনার ম্যাচ

আইভরি কোস্ট-পর্তুগাল

যদি ধরে নেয়া হয় যে ব্রাজিল জি গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়েই পরের রাউন্ডে খেলবে তাহলে উত্তর কোরিয়ার স্থান হবে তলানীতে তা ভেবে নেয়া কঠিন নয়কিন্তু প্রশ্ন একটাই দ্বিতীয় কোন দল ব্রাজিলের সঙ্গী হবে? এর উত্তর মিলবে পোর্ট এলিজাবেথে অনুষ্ঠেয় আইভরি কোস্ট পর্তুগাল ম্যাচের মাধ্যমে

_____________________________________________________________

 

প্রোফাইল : ব্রাজিল

বিশ্বকাপ আর ব্রাজিলকে প্রায় সমার্থক ধরা হয়ে থাকেব্রাজিল খেলেই শিরোপার জন্যতাই কোনো বিশ্বকাপ থেকে আগে ভাগেই ব্রাজিলের প্রস্থান মানে হলো খেলাটাই পুরো পানসে হয়ে যায়স্বভাবতই এবারও ব্রাজিল মাঠে নামবে শিরোপা ঘরে তুলতেইঅবশ্য ব্যাপারটা অনেকটা অভ্যেসের মতো হয়ে গেছে ব্রাজিলিয়ানদেও কাছেপাঁচ বার শিরোপার স্বাদ পাওয়া একমাত্র দল তো তারাইবর্তমান কোচ দুঙ্গা খেলোয়াড় হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ প্রাপ্ত একমাত্র কোচতার ভালই জানা আছে যে শিরোপা ছাড়া অন্য যে কোনো ফলাফল তার দেশবাসীর কাছে চরম ব্যর্থতা বলেই গণ্য হবে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

বাছাই পর্বে একটু সামান্য খারাপ ফলাফলের পর ব্রাজিলের সমর্থকরা যেরকম উত্তেজিত প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে তাতে চূড়ান্ত পর্বে খারাপ করাটাকে তারা ক্ষমা করবে না কিছুতেইবাছাই পর্ব খুব একটা খারাপ হয়নিগ্রুপের শীর্ষে থেকেই ম্যাচ শেষ করা গেছেনয় জয়, সাত ড্র আর দুই হারের পরও তিন ম্যাচ বাকি থাকতেই আফ্রিকার টিকেট নিশ্চিত করা গেছে তবু নিজ দেশে আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া আর কলম্বিয়ার বিরুদ্বে গোলশূণ্য খেলা শেষ করার পর নিদারুণ সমালোচনার মুখে পড়ে দুঙ্গার দলের পারফরমেন্সতবে পরবর্তীতে একাদিক্রমে পাচঁ জয় জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ফেভারিটদের আরো ফেভারিট করে দেয়তার মধ্যে দুই গুরুত্বপূর্ণ অ্যাওয়ে ম্যাচে আসে জয়একটি উরুগুয়ের বিরুদ্ধে ৪-০ গোলের বিশাল জয়অন্যটি চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে ৩-১ গোলে তাদেও মাঠেই ধরাশায়ী করাএবং এই জয়ের মাধ্যমেই বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে ওঠার টিকিট নিশ্চিত হয়ে যায় দুঙ্গার দলের

যারা নজর কাড়বেন

ব্রাজিল মানে হলো বিশ্বসেরা সব ফুটবলারের সূতিকাঘরতাই তাদের দু এক জনকে বেছে নেয়া প্রায় অসম্ভবতবু কারো কারো কথা বিশেষ ভাবে বলতেই হচ্ছেগোলবারের নিচে জুলিয়াস সিজার, যার নিরাপদ হাত গলে গোল পাওয়া প্রতিপক্ষের জন্য প্রায় অসম্ভবকাকা নিজেই একটি প্রতিষ্ঠানের মতোযে দলে কাকার মতো খেলোয়াড় থাকে তার অনুপ্রেরণার অভাব হয় না২০০৯ সালে ফিফা কনফেডারেশনস কাপেও তিনি তা দেখিয়েছেনএডিডাস গোল্ডেন বল পুরষ্কার জেতা কাকা জ্বলে উঠলে প্রতিপক্ষদের জন্য খারাপ সংবাদ বয়ে আনবেআক্রমণে সব সময়ই বাঘা বাঘা সব নাম উপহার দিয়েছে ব্রাজিল এবার বলতে হয় লুইস ফ্যাবিয়ানোর নামএই বিশ্বমানের ফিনিসার পাঁচগোল করে নিজের জাত চিনিয়ে দিয়েছেন

প্রশিক্ষকের কথা

আগস্ট ২০০৬ সালে কার্লোস সিটানো ব্লিডর্ন ভেরি যিনি দুঙ্গা নামেই সমধিক পরিচিত ব্রাজিলের দায়িত্ব নেয়ার পর উপলব্ধি করতে সক্ষম হন যে ব্রাজিলের পক্ষে খেলোয়াড় হিসেবে খেলার চেয়ে কোচ হিসেবে দল চালানো কোনো অংশেই সহজ কাজ নয়খেলোয়াড় হিসেবেও ছিলেন দারুণ সফলইতালী বিশ্বকাপে খারাপ করার পর অনেক সমালোচনা নিরবে হজম করতে হয়েছিল তাকেচার বছর বাদে ৯৪ তে দলকে বিজয়ী করে তার জবাব দিয়েছিলেন দুঙ্গাকোচ হিসেবে এটা শুরু হলেও ২০০৭ এর কোপা আমেরিকা কাপের শিরোপা, ২০০৯ এর ফিফা কনফেডারেশনস কাপের খেতাব জিতে আর তিন ম্যাচ বাকি থাকতেই বিশ্বকাপ নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে তার বিরুদ্ধে অনভিজ্ঞতার যে অভিযোগ ছিল তা উড়িয়ে দিয়েছেন দুঙ্গা

 

প্রোফাইল : উঃ কোরিয়া

উঃ কোরিয়া আপাত দৃষ্টিতে যেন হঠাৎ করেই এসে বাছ্ইা পর্ব জয় করে আফ্রিকার টিকেট নিশ্চিত করে চলে গেল চূড়ান্ত পর্ব খেলতেউঃ কোরিয়াকে সব সময়ই এশিয়ার সারপ্রাইজ প্যাকেজ বলা হয়ে থাকেঅনেক বাঘা বাঘা দলকে পেছনে ফেলে এশিয়ার চার অটোমেটিক স্পটের একটি দখল করে সবাইকে বেশ চমকে দিয়েছে রাজনৈতিক কারণে অনেকটা চোখের আড়ালে থাকা দলটিতাদের বাছাইপর্বের এ্ই সাফল্য ১৯৬৬ সালের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে যেবার উত্তর কোরিয়া শেষ আটে পৌঁছে তাবৎ দুনিয়াকে অবাক করে দিয়েছিল

প্রায় তিরিশ বছর দিক হারা ছিল দেশটির ফুটবলতবে গত এক দশকে ফুটবল নতুন ভাবে গড়ে উঠছে সেখানেমহিলা দলটি বিশ্ব অঙ্গনে বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছে আগেইপুরুষ দলটি গত বিশ্বকাপেও প্রায় উতরে গিয়েছিল এবার পুরোপুরিই উতরেছে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের বাধা পেরুতে যথেষ্ট খাটতে হয়েছে কোরিয়ার এই দলটিকেদীর্ঘ কুড়ি মাসের ঘাম ঝরানো পরিশ্রম আর অপেক্ষা এবং ১৬ টি খেলার হার্ডলস পেরিয়ে তবেই তারা পেয়েছে আফ্রিকার টিকেট

মঙ্গোলিয়ার বিরুদ্ধে বাছাই পর্বের প্রথম পর্বের খেলাগুলোতে সহজেই জয় পায় উত্তর কোরিয়াদ্বিতীয় পর্বে তারা প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়ার পেছনে থেকে খেলা শেষ করে এবং বাছাই পর্বের চূড়ান্ত লেগে ওঠেসেখানে তাদেও শুরুটা ছিল দারুণশক্তিশালী সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ২-১ গোলে হারিয়ে শুরুপরে চির প্রতিদ্বন্দ্বী দঃ কোরিয়াকে ১-১ গোলে আটকে দেয়াইরানের কাছে ২-১ গোলে হেরেও তারা ঠিকই ট্র্যাকে ফিরে আসে যখন তারা নিজের মাটিতে সৌদি আরবকে ১-০ গোলে হারিয়ে দেয়তারপর দক্ষিণের কাছে ১-০ গোলে হেরেও খুব একটা বিপদে পড়েনি উত্তর কারণ পরের ম্যাচে ইরানের সাথে খেলা ড্র রেখে গ্রুপের দ্বিতীয় স্থান ধরে রাখে দলটিশেষ ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে মাত্র এক পয়েন্ট দরকার ছিল চূড়ান্ত পর্বে যাওয়ার জন্যতারা সেটি সাহসের সাথেই করে এবং সৌদি আরবকে গোলশূণ্য ড্র মেনে নিতে বাধ্য করে

যারা নজর কাড়বেন

দলের দুই তৃতীয়াংশ খেলোয়াড়ই স্থানীয় ক্লাবের থেকে রিক্রুটযদিও দলে বিদেশে খেলা ফুটবলারের সংখ্যা বেশ কম তবু দলের সাফল্যের জন্য তাদের ভূমিকা বেশ গুরুত্বপুর্ণযেমন এফ সি রস্টভ এর হং ইয়ং জো সাম্প্রকিতক সময়ে মারাত্মক ফর্মে আছেনএই সাতাশ বছর বয়সী গোল করা মেশিন কমপক্ষে চারটি ম্যাচে চারটি করে গোল করেন তার দলের হয়েতার সাথে খেলবেন জাপান ভিত্তিক খেলোয়াড় জং তে সে যার গতি এবং শক্তির কাছে যেকোনো ডিফেন্স ভেঙ্গে যেতে পারেঘরোয়া লীগে খেলা মিডফিল্ডারর ম্নু ইন গুক দলের হৃৎপিন্ডের কাজ করবেনআর গোল বারের নিচে রি মিইয়ং গুকের নিরাপদ হাত অনেক বিপদ থেকেই বাঁচাবে দলটিকে

প্রশিক্ষকের কথা

যখন তার দেশ ১৯৬৬ সালে ইতিহাস রচেছিল তখন কোচ কিম জং হানের বয়স ছিল দশ বছরএখন তার ৪৩ বছর পরে হানের হাতেই ভার সেরকম আরেকটি ইতিহাস রচনারদলে যেহেতু আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা ফুটবলারের সংখ্য নগন্য তাই তার স্ট্যাট্রেজি হবে প্রাগমাটিক এবং ডিফেন্সিভ অ্যাপ্রোচের যোগফল

বিশ্বকাপে এর আগে

ইংল্যান্ডে ডেব্যু হয়েছিল বিশ্বমঞ্চে ফুটবল খেলারসেখানে অখ্যাত এশিয়ার এই দল বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইতালীকে হতাশায় ডুবিয়ে ১-০ গোলে হারিয়ে পৌঁছে গিয়েছিল কোর্য়াটার ফাইনালেএরপর যে কোয়ার্টার ফাইনালটি উপহার দিয়েছিল তারা পর্তুগালের সাথে তা আজো বিশ্বফুটবলের অন্যতম আকর্ষক ম্যাচ বলে পরিগণিত হয়খেলা শুরুর ২৫ মিনিটের মধ্যে ৩ গোলে এগিয়ে গিয়েছিল উত্তর কোরিয়াকিন্তু ইউসেবিও নাটক তখনো বাকিতিনি একাই চার গোল করে ম্যাচে পর্তুগালের জয় নিশ্চিত করলেন তারা ম্যাচ জিতল ৫-৩ গোলে

 

 

প্রোফাইল : আইভরি কোস্ট

 

যদি কোনো আফ্রিকান দেশকে এবারের বিশ্বকাপে অঘটন ঘটাবে বলে মনে করা হয় তবে তা আইভরি কোস্টদলীয় একাদশে বিশ্বমানের এত বেশি ফুটবলারের আনাগোনা যে ব্যাপারটি অস্বাভাবিক কিছুই হবে নাআর দলটির কিছু প্রমাণ করার বাকিও আছে যা তারা গত বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্যায়ে বাদ হয়ে গিয়ে করতে পারেনিযদিও খুব একটা কঠিন গ্রুপে পড়েছিল তারাসেখানে জায়ান্ট আর্জেন্টিনা আর নেদারল্যান্ডের কাছে ১-২ গোলে হেরে গেলেও পিছিয়ে থেকেও সার্বিয়া ও মন্টেনিগ্রোকে ৩-২ গোলে হারিয়েছিল আইভরি কোস্টএবার দলের অভিজ্ঞতা আগের চেয়ে বেশি- সাথে সামান্য সৌভাগ্যের দেখা পেলে দিদিয়ের দ্রগবার দল হয়তো বড় কিছু ঘটিয়েই ফেলবে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

মহাদেশের ফুটবল পাওয়ার হাউজ খেতাবকে মূল্য দিতেই বোধয় বাছাইপর্বে একটি ম্যাচও না হেরে চূড়ান্ত পবে ওঠে আইভরি কোস্টএ পর্যায়ে তারা পেছনে ফেলে বুরকিনা ফাসো, মালায়ি এবং গিনিকেএকবারই অনিশ্চয়তা এসেছিল তবে দিদিয়ের দ্রগবা জ্বলে উঠে সেই মেঘ সরিয়ে ফেলেনবারকিনা ফাসো এবং মালায়ির বিপক্ষে প্রয়োজনীয় সময়ে গোল করে দলকে চূড়ান্ত পর্বে উঠিয়ে দেন এই চেলসি তারকাপাঁচ খেলায় ছয় গোল করে বাছাইপর্বে দ্রগবাই সর্বোচ্চ গোলদাতা

যারা নজর কাড়বেন

আগেই বলেছি দলটি বিশ্বমানের তারকাদের প্রাচুর্য রয়েছেচেলসির জুটি দিদিয়ের দ্রগবা আর সালোমন কালৌ দুই বিপজ্জনক খেলোয়াড় যে কোনো পর্যায়ের জন্যসেভিলাতে খেলা দিদিয়ের জোকোরা এবং বার্সেলোনার ইয়াইয়া টোরে মধ্যমাঠের প্রাণ সাথে আছেন মার্সেইলস দলের ছোটখাটো বেকারি কোনঅন্যদিকে ইংল্যান্ড ভিত্তিক জোড়া ইমানুয়েল ইবোই এবং কোলো টোরে স্টুটগার্টের আর্থার বোকার সাথে মিলে তৈরী করেছেন আফ্রিকার সেরা রক্ষণব্যুহ

প্রশিক্ষকের কথা

বিভিন্ন ক্লাবের কোচের দায়িত্ব পালন করতে এখানে ঘুরে বেড়ানো কোচ ভাহিদ হালিলহোদজিক তার জীবনে প্রথম কোনো জাতীয় দলের দায়িত্ব পেলেন আইভরি কোস্টের কোচ হবার মাধ্যমেতিনি ২০০৮ সালে সি এ এফ আফ্রিকান কাপ অব নেশনস শেষ হবার পর এই দায়িত্ব বুঝে পান

বসনিয়ায় জন্ম নেয়া হালিলহোদজিক একসময় যুগোশ্লাভিয়া দলের আক্রমণভাগের কুশলী খেলোয়াড় ছিলেনতার দল অপ্রত্যাশিত ভাবেই গোল ব্যাবধানে পিছিয়ে পড়ে ৮২ এর বিশ্বকাপ এর গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়ে যায়তার কোচিং ক্যারিয়ারের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ তার কেটেছে ফ্রান্সেহালিলহোদজিক জানাচ্ছেন যে তিনি আবারো ক্লাব পর্যায়ের কেচিংয়ে ফিরতে আগ্রহী এবার ইংল্যান্ড প্রিমিয়ার লীগ তার পছন্দ

বিশ্বকাপে এর আগে

জার্মানী বিশ্বকাপে আইভরি কোস্টই ছিল একমাত্র দল যেটি দেশের বাইরে বিভিন্ন ক্লাবে খেলা ফুটবলারদের নিয়ে গঠিত হয়েছিল

 

প্রোফাইল : পর্তুগাল

ইউয়েফা ইউরো ২০০৪ এর ফাইনালিস্ট এবং জার্মানী বিশ্বকাপের সেমিফাইনালিস্ট পর্তুগাল দল সাম্প্রতিক সময়ে বেশ ভাল ফুটবল খেলছেকিন্তু এখন অব্দি বড় কোনো শিরোপার সন্ধান দলটি পায়নি

তারা বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের পরেও কখোনো পৌঁছে নিতাই তাদের চোখ এবার ফাইনালের দিকেইমোজাম্বিকের জন্ম নেয়া কোচ কার্লোস কুয়েইরোজ দঃ আফ্রিকায় কোনো আগুন্তুক নন, তিনি একসময় স্বাগতিক দঃ আফ্রিকার কোচ ছিলেনতার এই  অভিজ্ঞতা পর্তুগালের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণিত হতে পারে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

গ্রুপ ফেভারিট হিসেবে যাত্রা শুরু করলেও বাছাইপর্বের প্রথম পাঁচ ম্যাচে মাত্র এক জয় নিয়ে পর্তুগাল একসময় বাদ পড়ার শংকায় পড়ে গিয়েছিলতবে দ্বিতীয় পর্যায়ে এক নতুন পর্তুগাল দলকে পর্যবেক্ষণ করল বিশ্বশেষ চার ম্যাচ পর পর জিতে তারা প্লে অফের সুযোগ পেলতাদের অধিনায়ক এবং শেষ ভরসা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো না খেললেও তারা বসনিয়া হার্জেগোভিনার বিপক্ষে হোম এন্ড অ্যাওয়ে ম্যাচে জয় নিয়ে ঠিকই পৌঁছে যায় চূড়ান্ত আসরে

যারা নজর কাড়বেন

ভক্তরা ২০০৮ এর ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ব্যাপার নিয়ে খুব উত্তেজিত থাকলেও এই তালিসমান কিন্তু বাছাই পর্বে বেশ অদৃশ্যই ছিলেনসাত ম্যাচে অংশ নিয়েও একটি গোলও করতে পারেননি তিনিযাই হোক, রিয়েল মাদ্রিদের এই তারকা সময়মতো জ্বলে উঠতে জানেন এবং হয়তো ঠিকই জ্বলে উঠবেন

তবে শুধু আক্রমণ ভাগেই নয় রক্ষণ ভাগেও বেশ কম্প্যাক্ট দল এই পর্তুগাল দলআগ্রাসন আর বাতাসে বল দখলের দক্ষতায় পেপে আর বুনো দুজনই সেরাআর সতীর্থ ডিফেন্ডার জোসে বোসিংওয়া এবং রিকার্ডো কারভালহো দলের মানে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি বয়ে আনবেনবর্ষীয়ান মিডফিল্ডার সিমাও এবং ডেকো দারুণ খেলবেন বলেই ভক্তরা আশা করছে

প্রশিক্ষকের কথা

কার্লোস কুয়েইরোজকে বলা হয় পর্তুগালের গোল্ডেন জেনারেশনের মাস্টারমাইন্ডতার হাত ধরেই লুই ফিগো, রুই কস্তা এবং ফারনান্ডো কুটোর মতো বিশ্বমাপের ফুটবলার বেরিয়ে এসেছিল ১৯৮৯ এবং ১৯৯১ এর ফিফা বিশ্ব যুব চ্যাম্পিয়নশীপে

সিনিয়র লেভেলে কুয়েইরোজ স্যার অ্যালেক্স ফারগুসনের সহকারী হিসেবে খ্যাতি কুড়ানম্যান ইউর দ্বিতীয় কোচ হিসেবে দুবার দায়িত্ব পালনের মধ্যে দশ মাসের জন্য তিনি রিয়েল মাদ্রিদের কোচ ছিলেন২০০৮ সালে লুই ফিলিপ স্কলারির স্কলাভিষিক্ত কুয়েইরোজ এর এটা দ্বিতীয় বার জাতীয় দলের দায়িত্ব গ্রহণএর আগে ১৯৯১ থেকে ৯৩ তিনি কোচ থাকলেও তখন সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতা উপহার দিয়েছেন বেশি

বিশ্বকাপে এর আগে

পর্তুগাল বিশ্বকাপে প্রথম খেলে ১৯৬৬ সালেসেবার ফুটবলের জাদুকর ইউসেবিওর নৈপূন্যে তৃতীয় স্থান অর্জিত হয়েছিল দলটিরআর ইউসেবিও পান গোল্ডেন বুট পুরষ্কারসেই ডেব্যু টূর্ণামেন্টের সাফল্য এখন পর্যন্ত দলটির শ্রেষ্ঠ অর্জন

পর্তুগাল ১৯৮৬ এবং ২০০২ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের বাধা ডিঙ্গোতে পারেনিজার্মানী ২০০৬ বিশ্বকাপে পর্তুগীজরা বুঝি নিজেদের কিছুটা হলেও ফিরে পেয়েছিলগ্রুপ পর্বে তারা অপরাজিত থেকে তারা নেদারল্যান্ডসা আর ইংল্যান্ডের বাধা তুচ্ছ করে পৌঁছে যায় সেমিতেসেখানে বুড়ো ঘোড়া জিদানের দল ফ্রান্সের কাছে ০-১ গোলে হেরে স্বপ্ন মুখ থুবড়ে পড়েপরে স্বাগতিক জার্মানীর কাছে প্লে অফে হেরে তৃতীয় স্থানও হারায় দলটি

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.