Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  মূল রচনাবলীঃ  ||  ১০ম বর্ষ ২য় সংখ্যা জ্যৈষ্ঠ ১৪১৭ •  10th  year  2nd  issue  May - Jun  2010 পুরনো সংখ্যা
বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যালোচনা (গ্রুপ এফ) Download PDF version
 
বিশ্বকাপ 
ফুটবল 
২০১০

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যালোচনা

জহিরুল ইসলাম নাদিম

গ্রুপ এফ

শিরোপাধারীর শিরঃপীড়ার কারণ

প্রথম দর্শনে মনে হতেই পারে যে ইতালী দলই পরিষ্কার ফেভারিট এ গ্রুপেএ মনে হওয়া যে খুব একটা ভুল তাও নয়আসলেই এ গ্রুপ থেকে চিন্তাভাবনা না করেই ইতালীকে পরবর্তী রাউন্ডে উঠে যাওয়া উচিততবে সব সময় ঔচিত্য মেনে কি আর ব্যাপার স্যাপার ঘটেদেখা গেল আন্ডারডগের কামড়ে ক্ষত বিক্ষত হয়েছে শিরোপাধারী বাঘ! যদি তারা নিশ্চিতই যায় তাহলে পরের স্থানটির জন্য জোর লড়াই দেখা যাবে প্যারাগুয়ে আর স্লোভাকিয়ার মধ্যেতবে শেষ দল নিউজিল্যান্ডের কাছে হারানো কিছু নেই-সবই পাওয়ার

_____________________________________________________________

টপ ফেভারিট

ইতালীঃ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এবং এ যাবৎকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চার বার বিশ্বকাপ শিরোপা জেতা ইতালী দলই চূড়ান্ত ফেভারিট এই এফ গ্রুপেদলটি এবার নিয়ে মোট ১৭ বার চূড়ান্ত পর্বে খেলার স্বাদ নিতে যাচ্ছে  ইতালী দল ২০০৬ সালে শিরোপা জেতার পর আদ্যপান্ত বদলে গেলেও এখন দুএকজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড় যেমন মধ্যমাঠের কুশলী খেলোয়াড় ফ্যাবিও ক্যানাভারো বা রক্ষক বুফো এখনও দলের অন্যতম ভরসা

প্যারাগুয়েঃ দলটি এ নিয়ে পর পর চারবার বিশ্বকাপের চুূড়ান্ত পর্বে উঠলোএবার বাছাই পর্বে তারা ছিল সত্যি জমাটবদ্ধ একটি দল যাদের নৈপূণ্য ছিল চোখে পড়ার মততারা দশটি জয়, তিনটি ড্র আর পাঁচটি পরাজয়ের সুতোয় গেঁথেছিল এবারকার বাছাই পর্বের মালাফিফা র‌্যাংকিংএ ৩০ তম এ দলটি গতবার প্রথম রাউন্ডের বাধা পেরুতে পারেনিএবার পেরুবে এমনটিই আশা

আউটসাইডার

স্লোভাকিয়াঃ বর্তমানে দলটির র‌্যাংক ৩৪তারা অকেটা নাটকীয় ভাবে ইউরোপীয় বাছাই পর্বের একটি ট্রিকি গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে চূড়ান্ত পর্বে উঠেছেচেক রিপাবলিক, পোল্যান্ড আর উত্তর আয়ারল্যান্ডের মতো দলের সাথে খেলে গ্রুপের শীর্ষ স্থান পাওয়া বেশ কৃতিত্বেও ব্যাপারএবারই প্রথম স্বাধীন একক দেশ হিসেবে বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলা হচ্ছে দেশটিরতবে সাবেক চেকোস্লোভাকিয়ার অংশ হিসেবে এর আগে আরো আটটি চূড়ান্ত পর্ব খেলা হয়েছিল দলটিরশুধু তাই নয় দু দুবার বিশ্বকাপ রানার্স আপ দলের নামও কিন্তু ওই চেকোস্লোভাকিয়া

নিউজিল্যান্ডঃ  ওশেনিয়া অঞ্চলের বাছাইপর্বের বাধা পেরিয়ে সব সাদার দল নিউজিল্যান্ড চুড়ান্ত পর্বে উঠলেও তাদেরকে ফুটবলের ক্ষুদ্র শক্তি হিসেবেই বিবেচনা করা হয়বিরাশি সালের পর এই প্রথম দেশটি বিশ্বকাপের মূল আসরে খেলতে চলেছেতারা দুই ম্যাচের প্লে অফে শক্তিধর প্রতিপক্ষ বাহরাইন এর বাধা পেরিয়ে চূড়ান্ত পর্বে এসেছেতবে দারুণ শৃঙ্খলাবদ্ধ দলটি যে কোনো পর্যায়ে ভাল করবার যোগ্যতা রাখেএ বছর শুরুর দিকে চ্যাম্পিয়ন ইতালীর সাথে এক প্রদর্শণী ম্যাচে ৪-৩ গোলে তাদের হার এই সত্যকেই পরিষ্ফুট করে

যারা নজর কাড়বেন

জিয়ানলুইগি বুফো, ফ্যাবিও ক্যানাভারো, জেন্নারো গাত্তুসো, আন্দ্রে পিরলো (ইতালী), রবার্ট ভিটেক (স্লোভাকিয়া), জাস্টো ভিলার, সালভাদও ক্যাবানাস (প্যারাগুয়ে), রিয়ান নেলসন (নিউজিল্যান্ড)

জমাট উত্তেজনার ম্যাচ

ইতালী-প্যারাগুয়েঃ দুই গ্রুপ  ফেভারিট গ্রুপের শীর্ষস্থান পেতে মরিয়া হয়ে লড়বে তা বোঝাই যাচেছঅবশ্য স্লোভাকিয়া এই ম্যাচে পরাজিত দলের ওপর ভাল চাপ সৃষ্টি করতে সক্ষম হবে যদি তারা আন্ডারডগ কিউদের ভাল ব্যবধানে হারাতে পারে

_____________________________________________________________

 

প্রোফাইল : ইতালী

স্বাভাবিক ভাবেই ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ইতালীর একটা সম্ভাবনা থাকবে এবারও ফাইনালে খেলারসম্ভাবনা যতটা না তার চেয়ে বেশি  হলো প্রত্যাশাসাধারণত এই রকমই হয়ে থাকেব্রাজিলের পরে ইতালী একমাত্র দল যারা একই ধারাবাহিতকায় দুবার এবং সর্বমোট  চার বার শিরোপার জয়ের রেকর্ড গড়েছেআর মার্সেলো লিপ্পির দল এবার আরেক বার সেই কৃতিত্ব গড়বার জন্য প্রাণান্তকর চেষ্টাই করবে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

আজ্জুরিরা গ্রুপ ৮ এ শীর্ষ স্থান পেয়েই চূড়ান্ত পর্বে উঠেছেএটা সম্ভব হয়েছে তাদের ঐতিহ্যগত ফুটবল দক্ষতা এবং যোগ্যতার কারণেসাত জয় এবং তিন ড্র তে সাজানো ছিল এবার তাদের বাছাই পর্ববাছাই পর্বের প্রথম থেকেই একটা টেম্পো বজায় রাখে গতবারের চ্যাম্পিয়নরাউদ্বোধনী দিনেই সাইপ্রাসকে হারায় ২-১ গোলেতারপর আর কখোনোই গ্রুপের দ্বিতীয় স্থানে তাদেরকে নামতে হয়নিএবং শেষ খেলার আগের ম্যাচে চূড়ান্ত পর্বের টিকিট নিশ্চিত হয় আজ্জুদেরমজার কথা হলো ১৯৮২ আর ২০০৬ সালে শিরোপাজয়ী দলটির চূড়ান্ত পর্বও নির্ধারিত হয়েছিল বাছাইপর্বের পেনাল্টিমেট খেলাতেই

যারা নজর কাড়বেন

অনেক বছর হয়ে গেল জিয়ানলুইগি বুফো তাবৎ বিশ্বের এক নম্বর গোল রক্ষক হিসেবে খ্যাতিমান হয়ে আছেনএকত্রিশ বছর বয়সী এই ফুটবলার রক্ষণভাগের দুই অটল দুর্গের একজনদু হাজার ছয় বিশ্বকাপের ফাইনালের অতিরিক্ত সময়ে জিনেদিনে জিদানের চমৎকার হেডারটি বাঁচিয়ে না দিলে হয়তো ফুটবল ইতিহাস অন্যভাবে রচিত হতোদ্বিতীয় দুর্গটি কোনো সন্দেহ ছাড়াই চির সবুজ ফ্যাবিও কানাভারোবয়স ৩৬ হলেও এখনো তার ফুটবল সেন্স অদ্বিতীয়মধ্যমাঠের মার্শাল বলা যায় জেনারো গাত্তুসোকেতাকে পরিচয় করিয়ে দেয়ার কিছু নেইশুধু বলা যায় আজ্জুরি ক্যাম্পের তিনিই চালিকা শক্তি, যোদ্ধা আর অল রাউন্ড প্রতিভা

প্রশিক্ষকের কথা

একষট্টি বছর বয়সী কোচ মার্সেলো লিপ্পিকে বলা যায় কোচের সম্রাটখেলার মাঠের হাওয়া ঘুরিয়ে দিতে তার জুড়ি কমই আছেগত বিশ্বকাপে ইতালী যে ১২ টি গোল করে তার কম করে হলেও ৫ টি গোল করেন বদলী খেলোয়াড়রাফুটবল ক্যারিয়ারে তার আর পাবার কিছু নেইতাই বুঝি গতবার দলকে শিরোপার স্বাদ পাইয়ে দিয়ে স্বেচ্ছায় সরে গিয়েছিলেন পদ থেকেতবে ইউরো ২০০৮ এ দল ব্যর্থ হলে অনিবার্য ভাবে দলের দায়িত্ব নিতে হয়ে তাকেদলে ফিরেই বেশ কিছু তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন নিয়ে আসেন লিপ্পিরক্ষণকে জোরালো করেন, মধ্যমাঠকে ঢেলে সাজান আর আক্রমণে যোগ করেন নতুন কিছু বিষযার শুভ ফল দল পেতে শুরু করে বাছাই পর্বেই

বিশ্বকাপে এর আগে

আঠারো বারের মধ্যে ইতালী মোট ষোল বার খেলছে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বেআসলে ব্যর্থ ছিল একবারই ১৯৫৮ সালেএছাড়া প্রথম সংস্করণে খেলতেই যায়নি দলটিএক মাত্র ব্রাজিল ছাড়া বিশ্বকাপ শিরোপা সর্বোচ্চ চারবার তাদেরই জেতা হয়েছেসেটা ১৯৩৪, ১৯৩৮, ১৯৮২ এবং ২০০৬ সালেআবার দুবার রানার্স আপ হবার সম্মানও আছে তাদের পকেটে, ৭০ আর ৯৪ সালেনিজেদের মাটিতে অর্থাৎ ৯০ বিশ্বকাপে তৃতীয় স্থান পেয়েছিল দলটি

 

প্রোফাইল : প্যারাগুয়ে

বাছাই পর্বে এবারই তারা নিজেদের সেরা নৈপূণ্য প্রদর্শণ করে এসেছেপর পর চতুর্থ বারের মতো চূড়ান্ত পর্বে খেলার সুযোগ পাওয়া প্যারাগুয়ে তাই এখন আরো অধিকতর সাফল্যের আশা করতেই পারেবর্তমান আর্জেন্টাইন কোচের অধীনে দলটি গত ১৯৯৮ আর ২০০২ এর ফলাফলের পুনাবৃত্তি সহ আরো ভাল কিছু করতে চায়সেই দুই বারই শেষ ষোলতে পৌঁছেছিল প্যারাগুয়েযদিও শেষ বার প্রথম রাউন্ডেই ছিটকে যায় দলটি

কোচ জেরাডোর পূর্বসুরী জোর দিতেন রক্ষণাত্মক কৌশলকেতিনি তার সাথে আক্রমণকেও সামনে এগোবার কৌশল হিসেবে দেখছেনদলে একঝাঁক দক্ষ আক্রমণ ভাগের খেলোয়াড় যোগ হওয়ায় প্যারাগুয়ে অনেক দলকেই বেশ ভোগাবে বলে মনে হচ্ছেগতবারের বেশ কজন খেলোয়াড় বর্তমানে দলেও খেলবেনএকে তারা অভিজ্ঞ দুই গতবারের হারের প্রতিশোধ নিতে উদগ্রীব থাকবেন--যা দলের জন্য দ্বিগুণ মুনাফা আনবে

রোড টু সাউথ আফ্রিকা

এই প্রথম প্যারাগুয়েকে তিরিশ পয়েন্টের বাধা পেরিয়ে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে আসতে হলোনতুন নিয়মের অধীনে দশ জয়, তিন ড্র আর পাঁচ পরাজয় ছিল তাদের অর্জনমোট ৩৩ নম্বর পেয়ে তারা চিলি আর ব্রাজিলের পেছনে থেকে খেলা শেষ করেম্যারাডোনার আর্জেন্টিনাকে ১-০ গোলে হারিয়ে জেরাডোর দল বিশ্বকাপের টিকিট প্রাপ্তি উদযাপন করেদেশটির প্রেসিডেন্ট তাতে এতটাই খুশী হন যে তিনি ওই জয়ের পর একদিনের জাতীয় ছুটি ঘোষণা করেন

যারা নজর কাড়বেন

কোচ জেরাডো সহজেই এমন কজন খেলোয়াড়ের সেবা নিতে পারেন যারা মেক্সিকো আর ইউরোপের বিভিন্ন ক্লাবে খেলে আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভ করেছেনদলের প্রতিটি সেক্টরে প্রমাণিত ভাল পারফরমাররা থাকলেও সেরা নাম আসবে সম্ভবত আক্রমণ ভাগ থেকেইইংল্যান্ডে কয়েকটি সার্থক মৌসুম কাটানোর পর রক সান্তা ক্রুজের আরো কোনো পরিচয় দেয়ার দরকার পড়ে নাবাছাই পর্বের বেশির ভাগ খেলায় তিনি অনুপস্থিত থাকলেও তার প্রয়োজনীতা দলে ফুরিয়ে যায়নিসালভাদর কাবানাস এবং নেলসন হিডো ভালডেজ দুজন মিলে এগারো গোল করে দলের তাদের গুরুত্বকে যর্থাথ ভাবেই তুলে ধরেছেনএই উল্লেখযোগ্য ট্রায়ো গত বিশ্বকাপেও ছিলেন তবে ক্লিক করতে পারেননিএবার ঠিক সময়ে জ্বলে উঠতে পারলে প্যারাগুয়ের জন্য তা হবে খুবই আশার কথা

প্রশিক্ষকের কথা

জেরাডো মার্টিনো জন্ম আর্জেন্টিনার রোজারিও শহরে ১৯৬২ সালেএই কোচ দ: আমেরিকান কোচদের মধ্যে একটি বিশেষ জায়গা করে আছেনপ্রতিভাবান আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার হিসেবে ১৯৯০ সালে খ্যাতি কুড়ান এল টাটা নামে পরিচিত জেরাডোপরে ১৯৯৮ সালে তিনি কোচিং পেশায় আত্মনিয়োগ করেনপ্রথমে আর্জেন্টিনার কিছু অখ্যাত ক্লাবে দায়িত্ব পালন করে তিনি পাড়ি জমান প্যারাগুয়েতে এবং সেরো পর্টেনো এবং লিবার্টাড দলের দায়িত্ব পানএই দলের হয়েই ক্লাব পর্যায়ে দারুণ সব সাফল্যের সন্ধান পান তিনি

প্রায়শঃই তাকে তার মেন্টর মার্সেলো বিয়েলসার সাথে তুলনা করা হয়লিবার্টাড দলে ভাল কিছু করার পুরষ্কার হিসেবেই কর্তৃপক্ষ তার হাতে প্যারাগুয়ের জাতীয় দল তুলে দেনকঠোর পরিশ্রমী এই কোচ দলের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস সন্দেহ নেইএকটা লো প্রোফাইল বজায় রেখেই বাছাই পর্বে রেকর্ড ভাঙ্গা নৈপূণ্য প্রদর্শন করে প্যারাগুয়ের ফুটবলপ্রেমীদের মনে নতুন আশার দীপ জ্বেলে দিয়েছেন জেরাডো

 

প্রোফাইল : নিউজিল্যান্ড

চার বছর আগে নিউজিল্যান্ডের ক্যাম্পেইন ছিল বিপর্যয়করতবে কোচ রিকি হারবার্টের হাত ধরে এবার ঠিকই তারা ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছেবিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের ডেব্যু হয়েছিল ২৮ বছর আগে স্পেনেতারপর এবারই প্রথম তারা বিশ্ব আসরে খেলার সুযোগ পাচ্ছেবাহরাইনের সাথে নাটকীয় প্লে অফে জেতা দলের পেছনে রাগবি আর ক্রিকেটে বুঁদ পুরো জাতি এসে দাঁড়িয়েছেরাজধানী ওয়েলিংটনে সেই নির্ধারক খেলায় রেকর্ড সংখ্যাক দর্শকের উপস্থিতিই তা প্রমাণ করে

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

নিউজিল্যান্ড তাদের ওসেনিয়া গ্রুপের প্রথম পাঁচটি ম্যাচে জয় দিয়ে বিশ্বকাপের দিকে তাদের অভিযান শুরু করেছিলশেষে প্রবণতার বিরুদ্ধে গিয়ে তারা ফিজির কাছে হেরে বসেতখন কিউই দলে অনেক নিয়মিত মুখ অনুপস্থিত ছিলতারপর এগারো মাসের দীর্ঘ প্রতিক্ষা এশিয়ার পঞ্চম স্থান পাওয়া দেশের সাথে দুই ম্যাচের প্লে অফ সিরিজ খেলার জন্যতীব্র গরমে মানামার ম্যাচে কিউইরা বাহরাইনের সাথে গোলশূণ্য ড্র করতে সমর্থ হয়দ্বিতীয় প্লে অফ হয় ওয়েলিংটনেতীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলার ররি ফেলনের সুন্দও হেডারের মাধ্যমে এগিয়ে যায় কিউইরাশেষ পর্যন্ত এই গোলই জয় পরাজয় নির্ধারক হয়ে ওঠেতবে গোলরক্ষক মার্ক পেস্টনের কথা ভুলবে না অনেকেইকারণ দ্বিতীয়ার্ধে পেনাল্টি ঠেকিয়ে দিয়ে নিউজিল্যান্ডকে নাটকীয় জয় এবং সেই সাথে আফ্রিকার টিকিট পাইয়ে দেন তিনি

যারা নজর কাড়বেন

অধিনায়ক এবং সেন্টার ব্যাক রিয়ান নেলসেন নিঃসন্দেহে সর্বোচ্চ প্রোফাইলের কিউই ফুটবলারতিনি দলের পক্ষে সর্বোচ্চ বার প্রতিনিধিত্ব করা খেলোয়াড়ও বটেন

এই অদম্য রক্ষণভাগের খেলোয়াড় বেশ কবছর ধরে ব্ল্যাকবার্ণ রোভার্সের হয়ে খেলে চলেছেনতিনিই একমাত্র নিউজিল্যান্ডার যিনি ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে এত দীর্ঘ ক্যারিয়ার পেয়েছেনপিচের অন্যপ্রান্তে দলে রয়েছে একাধিক প্রতিভাবান ফরোয়ার্ডনেতৃত্বে অবশ্যই ড্যাশিং শ্যেন স্মেল্ট যার রয়েছে অল রাউন্ড ফিনিসিং দক্ষতাতিনি পায়ে অথবা বাতাসে সমান বিপজ্জনকসেই সাথে লক্ষ্যভেদে অব্যর্থ ক্রিস কিলেন, ফ্যালন আর টিনেজ তারকা ক্রিস উডের কথা না বললেই নয়

প্রশিক্ষকের কথা

নিউজিল্যান্ড ফুটবলের অন্যতম সেরা ফিগার হলেন কোচ রিকি হারবার্টতিনি প্রথম বিশ্বকাপগামী দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন তারপর ইংল্যান্ডের উলভারহ্যাম্পটন ক্লাবের হয়ে খেলেছেনজাতীয় দলের দায়িত্ব পান ২০০৫ সালেএকই সাথে কিছুদিন নিউজিল্যান্ডের একমাত্র পেশাদার ফুটবল ক্লাব ওয়েলিংটন ফিনিক্সের কোচের দায়িত্বও পালন করেননিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ায় সমান জনপ্রিয় হারবার্ট অল হোয়াইট দলটিকে একটি সলিড টিমে পরিণত করার কঠিন কাজটি বেশ সাফল্যের সাথে করে চলেছেন

 

প্রোফাইল : স্লোভাকিয়া

সাবেক চেকোস্লোভাকিয়া থেকে পৃথক হওয়ার পর এই প্রথম এত বড় কোনো প্রতিযোগিতার অর্ন্তভূক্ত হতে পারল স্লোভাকরাতারা তাদের অতীত থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে এবার ভাল কিছু করবার ব্যাপারে প্রত্যয়ী

তাদের  দলে ঘরে ঘরে পরিচিত এমন কোনো ম্যাচ উইনার নেই যদিও তবু তারা সম্মিলিত ভাবে গড় মেধার ফুটবলারদের নিয়ে ভাল কিছু করার যোগ্যতা রাখেতাছাড়া ধারাবাহিক ভাবে ভাল খেলতে থাকা দলটির আত্মবিশ্বাসও বেশ ভাল

যেভাবে চূড়ান্ত পর্বে

ফ্রান্স ১৯৯৮ বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে চতুর্থ স্থান ছিল দলটির, ২০০২ কোরিয়া/জাপান কাপে তৃতীয়, ২০০৬ সালে দ্বিতীয় আর এবার গ্রুপের শীর্ষস্থানটি পেয়েছে স্লোভাকিয়া­াদিমির ওয়েসিসের দল ক্রমাগত ভাল করে শেষ অব্দি বিশ্বকাপে নিজেদের স্থান করে নিল

১৪ অক্টোবর ২০০৯ এর আগে তাদের নিয়ে অনেক জল্পনা ছিল যে শেষ পর্যন্ত হয়তো স্লোভাকিয়ার পক্ষে কোয়ালিফাই করা হবে নাবাছাই পর্বের খেলাগুলো মোটেও সুখকর ছিল না তাদের জন্যকিন্তু ধীরে ধীরে নিজেদের স্থান নিশ্চিত করেছে দলটিতাদের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্লোভাকিয়ার পথে সত্যিকার অর্থেই কাঁটা বিছিয়ে রেখেছিলতাদের কাছে হেরে গিয়ে ব্যাপারটা আরো জটিল করে ফেলে স্লোভাকিয়াতবে পোল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে জেতার দরকার ছিল স্লোভাকদেরএবং সেটাই করে ইতিহাস করা হলো স্লোভাকদের

যারা নজর কাড়বেন

লিভারপুলের মতো হেভিওয়েট দলে খেলা ডিফেন্ডার মার্টিন স্কারটেল স্লোভাকিয়া দলের প্রধান আকর্ষণসাথে মধ্যমাঠের কুশলী খেলোয়াড় মারেক হামসিকশেষোক্ত জনের আবার নেপোলির হয়ে গোল করা আর দেশের জার্সি পরে খেলার সময় জ্বলে ওঠার ভাল অভ্যেস আছেফলে আফ্রিকায় হামসিকের ফের জ্বলে ওঠার কথাএকই কথা খাটে স্টানিস্লাভ সেস্টাকের ক্ষেত্রেও

প্রশিক্ষকের কথা

জ্যান কোসিয়ান ইউয়েফা ইউরো ২০০৮ এ দলকে নিয়ে যেতে ব্যর্থ হবার পর প্রাক্তন আন্তর্জাতিক খেলোয়াড় ভ­াদিমির ওয়েসিসকে জুন ২০০৮ এ দলের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হয়ওয়েসিসের প্রধান গুণ হল তার ঋজু ব্যক্তিত্বস্থানীয় একটি মাঝারি সারির দলকে কোচিং করানোর মধ্য দিয় ওয়েসিসের কোচিং পথচলার শুরুতিনি ওই দলকেই ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগের গ্রুপ পর্যায় পর্যন্ত নিয়ে যান

নিজের কোচিং ক্যারিয়ারকে আরো শাণিত করতে এরপর তিনি স্যাটার্ণ মস্কো অবলাস্ট দলের কোচ হতে রাশিয়া যানফিরে এসে আগের দলের হাল ধরেন এবং দল লীগ চ্যাম্পিয়ন হলো­াদিমির ওয়েসিসের বাবার নামও ভ­াদিমির ওয়েসিস যিনি সাবেক চেকোস্লোভাকিয়া দলে খেলতেনমজার কথা হল নিজের ছেলের নামও তিনি রেখেছেন একই এবং তার পেশাও ফুটবলই

বিশ্বকাপে এর আগে

স্বাধীন দেশ হিসেবে এটাই স্লোভাকিয়ার প্রথম বিশ্বকাপতবে সাবেক চেকোস্লোভাকিয়ার অংশ হিসেবে আটটি বিশ্বকাপে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে দলটির পূর্বপুরুষদেরএমনকি তারা ১৯৩৪ এবং ১৯৬২ সালের ফাইনালেও উঠেছিলপ্রথমবার অতিরিক্ত সময়ে ইতালীর কাছে ১-২ গোলে হেরে এবং দ্বিতীয় বার ব্রাজিলের কাছে ১-৩ গোলে হেরে শিরোপা বঞ্চিত থাকতে হয় তাদের

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.