Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  শিল্প সংস্কৃতি  ||  ১০ম বর্ষ ২য় সংখ্যা জ্যৈষ্ঠ ১৪১৭ •  10th  year  2nd  issue  May - Jun  2010 পুরনো সংখ্যা
শিল্পী-সুরকার অনুপ ভট্টাচার্য Download PDF version
 

শিল্প-সংস্কৃতি

 

শিল্পী-সুরকার অনুপ ভট্টাচার্য

বাংলাদেশের প্রবীণ কণ্ঠশিল্পীদের মাঝে একজন হচ্ছেন অনুপ ভট্টাচার্য যিনি আধুনিক গানের সুরকার হিসাবেও পরিচিত। বর্তমানে ঢাকার গোপীবাগের একটি ফ্ল্যাট বাড়িতে সপরিবারে অবসর জীবন কাটাচ্ছেন তিনি। পড়শীর পক্ষ থেকে আমি তাকে কয়েকটি প্রশ্ন করেছিলাম। রবীন্দ্র জয়ন্তী উপলক্ষে আগামী কয়েকটি দিন খুব ব্যস্ত থাকবেন বলে জানালেন তিনি।

 

পড়শী : আপনি কতটুকু বয়স থেকে সঙ্গীত চর্চা আরম্ভ করেন?

অনুপ : একেবারে ছোটবেলা থেকেই আমার সঙ্গীত চর্চা শুরু। আমার বাবার বাড়িতে প্রত্যেকেই গানের চর্চা করতো। বড় ভাই-বোনেরা আর বাবা গান গাইতেন ভালো।

 

পড়শী : সঙ্গীতে আপনার হাতেখড়ি হয়েছিল কার কাছে?

অনুপ : রাজশাহীতে বাবার বাড়িতেই গানের হাতেখড়ি হয়েছিল আমার। পাশাপাশি এক শিক্ষকের কাছে যেয়ে গান শিখে আসতাম। আমি চার ভাই-বোনের মাঝে সবার ছোট ছিলাম। সবার ছোট জন্য অন্যদের শাসনটাও ছিল তেমনি কঠোর। তাই পড়াশোনার পাশাপাশি গানটাও ভালোভাবে চর্চা করতে হতো। তবে স্কুল শেষ করার পরপর উত্তরবঙ্গের বিখ্যাত গুরু  প্রয়াত হরীপদ দাসের কাছে পাঁচ বছর উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত শিখেছিলাম।

 

পড়শী : আপানি প্রথম গান করেন কোথায়?

অনুপ : আমি বাংলাদেশ বেতারের প্রথম ব্যাচের একজন শিল্পী। প্রথম গান করি রেডিওতে ১৯৬৩ সালের ১১ই মার্চ তারিখে। সেদিন আমি বিকালের অনুষ্ঠানে একটি রবীন্দ্র সঙ্গীত আর রাতের অনুষ্ঠানে একটি আধুনিক গান গেয়েছিলাম। পাকিস্তান সরকারের সময়ে রবীন্দ্র সঙ্গীত গাইতে অনেকেই ভয় পেত। ঐ সময়ে এদেশে আমারা মাত্র ১৫ জন রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী ছিলাম। এমনকি রবীন্দ্র জয়ন্তী উৎসব পালনও নিষিদ্ধ ছিল।

 

পড়শী : আপনার ছেলেবেলায় এমন কোন ঘটনা কি ঘটেছে যা মনে পড়লে এখনও আপনি হেসে ওঠেন?

অনুপ : তখন আমার মাত্র ১১ বছর বয়স। স্কুলে রবীন্দ্র জয়ন্তী অনুষ্ঠানে আমরা সবাই মিলে টুকটাক আয়োজন করলাম। ঐ স্কুলে আমার বড় ভাইও পড়তেন। আমাকে গান গাইবার জন্য বলা হলো। গান করার পর বাড়িতে এসে খুব মার খেলাম ঐ দাদার হাতে। দাদা বলেছিলেন, ‘তোমার গলাতো শোনাই গেল না। এজন্য রাগ করে ঐ গানের শিক্ষকের তানপুরার তার ছিড়ে, হারমোনিয়ামটা সামান্য ভেঙে দিয়েছিলাম। কিন্তু গুরু আমাকে কিছুই বলেননি। ওনার রাগ না করার ব্যাপারটা আমাকে পরবরর্তীতে অনেকখানি উৎসাহ দিয়েছিল গান শেখার ক্ষেত্রে।

 

পড়শী : আপনি আর কোন্ কোন্ দেশে গান করেছেন?

অনুপ : আমি ভারত ছাড়া অন্য কোন দেশে অর্থাৎ বিদেশে গান করিনি। ভারত সরকারের আমন্ত্রণে এক মাসের জন্য সেদেশে গিয়েছিলাম ১৯৮৪ সালে। আমার সাথে ফরিদা পারভীনসহ অন্যান্য কয়েকজন শিল্পী ছিল।

 

পড়শী : বাংলাদেশে কণ্ঠশিল্পীদের মাঝে কার গান শুনতে আপনার ভালো লাগে?

অনুপ : অনেকের গানই শুনতে ভালো লাগে। তবে বেশি পছন্দ করি সামিনা চৌধুরী, ফাহমিদা নবী , রফিকুল আলম, সুবীর নন্দী, নিলুফার ইয়াসমীন (প্রয়াত)- এদের গান।

 

পড়শী : গান গাওয়া ছাড়া আপনি সুর করে থাকেন। এ সম্পর্কে কিছু বলুন

অনুপ : আমি অনেক আধুনিক গানে সুর করেছি। যেমন- ‘বৈশাখী মেঘের কাছে জল চেয়ে...’ গানটি আমার সুর করা। মিতালী মুখার্জীর গাওয়া ‘সুখ পাখী রে...’ গানটিতেও আমি সুর দিয়েছি। এখনও গানে সুর করার কাজটা চালিয়ে যাচ্ছি।

 

পড়শী : আপনি পড়াশোনা করেছেন কোথায়?

অনুপ : আমি রাজশাহীতে স্কুল ও কলেজ শেষ করে ওখান থেকেই বি.এ. পাশ করেছি।

 

পড়শী : আপনি কি রান্না করতে পারেন? কোন্ কোন্ খাবার আপনার বিশেষ পছন্দ?

অনুপ : রান্নার কাজটা খুব কঠিন মনে করি। শুধু ডিম ভাজি আর ডিম সিদ্ধ করতে পারি। আমার পছন্দ মিষ্টি জাতীয় খাবার।

 

পড়শী : বর্তমান সময়ের আধুনিক গানে কোন কিছুর অভাব কি অনুভব করেন? এ অভাব কিভাবে পূরন করা সম্ভব?

অনুপ : এ সময়ের আধুনিক গানগুলি technologyনির্ভর। গায়ক যারা তৈরি হচ্ছে তারা কণ্ঠ সাধনা করে কম, পারফেক্টলি গান করে না। ওয়েস্টার্নtechnology শুধু অনুসরণ করলে চলবে না, ভালোভাবে জেনে তা করতে হবে। ফোক গানগুলোকে প্রাধান্য দিতে হবে। আমার মতে ফোক গানগুলো হচ্ছে প্রাণের গান। তরুণ প্রজন্মের কাছে আমার অনুরোধ তাদের গানের কথা  যেন পরিস্কার হয় আর তাদের গানে মিউজিক যেনো কম থাকে।

 

ইসমত আরা বেগম

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.