Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  সাহিত্য  ||  ৯ম বর্ষ ১২তম সংখ্যা চৈত্র ১৪১৬ •  9th  year  12th  issue  Mar - Apr  2010 পুরনো সংখ্যা
দেখিতে দুম্বা ডাকিতে হাম্বা Download PDF version
 

সাহিত্য

রম্যকথন :

দেখিতে দুম্বা ডাকিতে  হাম্বা

 

রণজিৎ বিশ্বা

 

আজ যাহা বলিব, গরু লইয়া বলিব। শৈশব হইতে শুরু করিয়া কয়েকদিন আগে চট্টগ্রামের এক হোটেলে বিল চুকানো পর্যন্ত গরু লইয়া যত কথা মনে জমা হইয়াছে, তাহার সকলকিছু যদি বলিয়া ফেলিতে পারিতাম ভালো হইত। কিন্তু, পারিব না! অনেককিছুই মনে নাই। অনেক কথা হারাইয়া গিয়াছে, স্মৃতিছুট হইয়াছে। তাই যাহা মনে আছে, তাহাই শুধু বলিব। শয়ের মধ্যে সাড়ে ঊনত্রিশ পাইয়া জীবনে প্রথমবার ফেল করিবার পর শিক্ষক আমাকে এক বিরূপ আনন্দে ভিজাইয়া দিয়াছিলেন অবিস্মরণীয় এক মন্তব্য করিয়া। ‘গরুগাধা মানুষ হইবে কিন্তু গণিতে তুই যেমন গরু তেমনই থাকিয়া যাইবি। তোর কোন পরিবর্তন হইবে না।

ইহা হইল এক। নাম্বার টু হইল, আমার বুদ্ধিশুদ্ধির ধরণধারণের জন্য বহুবার পরোক্ষ মন্তব্য আমার কানে আসিয়াছে- মাস্টার মেজোছেলেটি গায়ে গতরে টিমটিমা এক দুম্বার মত আর কাজেকর্মে হাম্বা-ডাকা প্রাণীর মত। উহা গায়ে-গতরে যেমন, বুদ্ধির আশে রোঁয়ায়ও তেমন। উহা আসিয়াছে গিলিবার জন্য, ভরিবার জন্য ও বর্জ্য বাড়াইবার জন্য। গরু  হইয়া সে আসিয়াছে, গরু  হইয়া থাকিবে এবং গরু হিসাবেই যাইবে। ভদ্রলোকের এক কথা।

তৃতীয়বার গরু আমাকে ঠেকাইয়াছিল পরীক্ষার খাতায়। না, রচনা কমন পড়ে নাই বলিয়া গরুকে শ্মশানঘাটে লইয়া গিয়া শিক্ষককে ক্ষেপাই নাই বা আমার বুদ্ধির জোরে তাহাকে প্রবল প্রহর্তা সাজাই নাই। অথবা, দুইবন্ধু হুবহু একই রচনা লিখিয়া শিক্ষককে বলি নাই- দোষ যদি স্যার কিছু হইয়া থাকে, উহা গরুর, আমাদের নহে। দুইজন একটি গরুকে নজর করিয়া রচনাটি প্র্যাকটিস করিয়াছিলাম বলিয়া রচনাটি এইরূপ হইয়াছে।

আমার ব্যাপারটি ছিল অন্যরকম। বেশি নম্বর পাইবার জন্য আমি বুদ্ধির ব্যবহার একটু বেশি করিয়াছিলাম। এবং, বেশি করিতে গিয়া নিজের জন্য একটি বিপদ ডাকিয়া আনিয়াছিলাম। এক আষাঢ়ে গল্পকারের পথ ধরিয়া আমি গরুর  বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ও প্রত্যঙ্গাংশের উপকারিতা আলাদা-আলাদা করিয়া লিখিতে গিয়াছিলাম। চামড়ার উপকারিতা কথা লিখিতে গিয়া বলিয়াছিলাম- গরুর  চামড়ার অন্য নাম হইতে পারে, ‘গোবেষ্টনী’। ইহা গরুর  দেহ এমন করিয়া বেষ্টন করিয়া রাখে যাহাতে উহা খুলিয়া পড়িয়া না যায়।

চামড়ার ব্যাগ হইতে গরু  খুলিয়া পড়িয়া যাক বা না যাক, আমার এই ‘গবেষণালব্ধ আবিস্কার’ যথাস্থানে প্রকাশিত হইবার পর আমি ভয়াবহ এক বিপদে পড়িয়াছিলাম। শিক্ষকের মুষ্টিবদ্ধ হাত হইতে চালিতাবরাবর কিছু কিল ‘পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক’ দূরত্ব হইতে আমার পিঠের উপর বিমুক্ত হইয়াছিল। আধাকেজি ওজনের ঢিলের মত ছুড়িয়া দেওয়া এই কিলগুলি আমার বেঢপ আকৃতির বাঁকা পিঠের উপর ধমাধম ল্যাণ্ড করিয়াছিল এবং আমার কুড়কুড়া হাড়হাড্ডি গুঁড়াগুঁড়া  করিয়া দিয়াছিল। শুধু সেই দিন নয়, আমার দীর্ঘজীবনের এমন ঘটনা হ্রস্বহ্রস্ব ব্যবধানে অজস্রবার ঘটিয়াছে। কিল যখন আমার দিকে ঢিলের মত ঢিলঢিলাইয়া ছুটিয়া আসিয়াছে, তাহার একটিও মাটিতে পড়ে নাই, একটিও লক্ষ্যচ্যুত হয় নাই। আমার ঘাতসহ পৃষ্ঠদেশ সকলের সকল কিলকেই পরম সোহাগে মানিয়া লইয়াছে এবং যত্নে-আত্তিতে ঠাঁই করিয়া দিয়াছে।

 

মন্তব্য:
Mahmoodul Haque Sayed   April 5, 2010
রণজিৎ বিশ্বাসের বিভিন্ন রম্যকথন পড়ে অনেকহেসেছি। অনেক আন্ন্দ পেয়েছি।কিন্তু একটি জিনিস মনে হয়, ভদ্রলোক বড়ই দুখী ও অভাবী। হয়তো নিরবে কাদেন। নিজে গোপনে কেদে কেদে মানুষকে আনন্দ দান করেন। কারণ, তার মতো পরিপক্ক লেখক বিবেকবান। আর বিবেকবানরাই দুখী ও অভাবী। আল্লাহ তার মঙ্গল করুন।
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.