Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  শিল্প সংস্কৃতি  ||  ৯ম বর্ষ ৬ষ্ঠ সংখ্যা আশ্বিন ১৪১৬ •  9th  year  6th  issue  Sept-Oct  2009 পুরনো সংখ্যা
জেফরী হিলারের ক্যামেরায় বাংলাদেশ Download PDF version
 

শিল্প-সংস্কৃতি

 

জেফরী হিলারের ক্যামেরায় বাংলাদেশ

 

     গেল বছরের ডিসেম্বরে এক সপ্তাহের জন্য ঢাকায় গিয়েছিলাম। কাকতালীয়ভাবে এই অল্প সময়ের ভেতরেই বাংলাদেশের নির্বাচন স্বচক্ষে দেখার সুযোগ হয়ে গেল। নির্বাচনের দিন ছিলাম ঢাকার মালিবাগে। মালিবাগ বাজারের কাছে একটি হাই স্কুলে ভোটকেন্দ্র সেখানে কিছুক্ষণ ভোট এবং ভোটারদের প্রত্যক্ষ করে বাসার দিকে হাঁটা দিয়েছি হঠাৎ চোখে পড়ল এক সাদা লোক, হাতে বিশাল ক্যামেরা যেন পথ হারিয়ে খানিকটা বিভ্রান্ত। এগিয়ে গিয়ে প্রশ্ন করলাম পথ হারিয়ে ফেলেছে কিনা। আলাপ শুরু হয়ে গেল জেফরী হিলারের সঙ্গে। জানা গেল জেফরী এসেছে আমেরিকার অরেগন থেকে পোর্টল্যান্ড থেকে। আমি যে কোম্পানীতে আছি, একসময় সেখানেই কাজ করত। একসঙ্গে দুজনেই বলে উঠলাম স্মল ওয়ার্ল্ড, ছোট্ট পৃথিবী ...।

        জেফরী হিলার ফুলব্রাইট স্কলারশিপ নিয়ে বাংলাদেশে ছিল নয়মাস ফিরে এসেছে অরেগনে জুলাই মাসে। ওকে আমার বিজনেস কার্ড দিয়েছিলাম ঢাকায়। ফিরে এসে আমাকে ইমেইল করল সঙ্গে ওর ওয়েবসাইটের লিংক। বাংলাদেশে থাকতে প্রচুর ছবি তুলেছে, তাই নিয়ে একটা কালেকশন। আমি আর লোভ সামলাতে পারলাম না বললাম, পড়শীর পাঠকদের সঙ্গে তোমার পরিচয় হওয়া দরকার। জেফরী এককথায় রাজি ওর ফটোর কালেকশন থেকে বেছে পাঠালো পনরটি ছিব তাই দিয়ে সাজানো এই গল্প জেফরী হিলারের ক্যামেরায় বাংলাদেশ।

     জেফরী স্বনামধন্য ফটোগ্রাফার। The New York Times, Geo, Newsweek, Mother Jones সহ আমেরিকা, ইউরোপ ও জাপানের বহু পত্র-পত্রিকায় ওর তোলা ছবি ব্যবহৃত হয়েছে। এশিয়া, ল্যাটিন আমেরিকা, ইউরোপ ও পশ্চিম আফ্রিকার নানা বিষয় নিয়ে ফটো-রচনা করেছে জেফরী। National Geographic এর ব্র্যাজিলিয়ান সংস্করণের হয়ে কাজ করেছে দুবছর। ভিয়েতনাম, পূর্ব ইউরোপ, ঘানা, বার্মা, এবং ব্রাজিলের উপর তৈরি করা ওর মাল্টিমিডিয়া প্রোডাকশন আমেরিকায় বিভিন্ন অর্গানাইজেশনে বিপুলভাবে প্রশংসিত হয়েছে।

     বাংলাদেশে জেফরীর তোলা ছবি নিয়ে ওয়েবসাইট : www.bangladeshproject.com আর বাংলাদেশে অবস্থানের অভিজ্ঞতা নিয়ে আছে একটি ব্লগ : www.banglaphoto.wordpress.com

            জেফরীকে বলেছিলাম, তোমার ছবি দেখাবার আগে বাংলাদেশে তোমার অভিজ্ঞতা নিয়ে কিছু বলো। জেফরী বললো :

     বাংলাদেশে একটি কথা প্রচলিত আছে (বিদেশীদের মধ্যে) যে কূটনীতিকদের ঢাকায় পাঠানো হলে তারা দুবার কাঁদে। একবার দায়িত্ব নিয়ে যাবার সময়, আর দ্বিতীয়বার দায়িত্ব শেষ করে ঢাকা ছাড়বার সময়। আমার অভিজ্ঞতায় বাঙালি সংস্কৃতি অন্যান্য মুসলিম সমাজের তুলনায় অনন্য, সহনশীল এবং উদার। বাংলাদেশ বিদেশী ফটোগ্রাফার তথা টু্রিস্টদের জন্য অত্যন্ত বন্ধুপ্রতিম জায়গা। যেহেতু বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ, প্রথমদিকে ছবি তোলার ব্যাপারে আমি খুব সতর্ক থাকতাম। ধীরে ধীরে অনুধাবন করলাম, আমার ধারনা মিথ্যে। বাংলাদেশে মানুষ অনেক উদার এবং উচ্ছ্বল। দেখলাম, ওরা নিজেরাই রাস্তাঘাটে নিজেদের সেলফোনে ছবি তুলে বন্ধু-বান্ধবদের পাঠাচ্ছে।

     ডকুমেন্টারী ফটোগ্রাফির জন্য সামাজিক অনুমতি এবং এক্সেস একটা প্রধান ব্যাপার। বাংলাদেশে আমার অভিজ্ঞতায় এক্সেস কোন বাধা হয়নি। আমি এমনকি মানুষের বাসা এবং মাদ্রাসাতেও ছবি তোলার আমন্ত্রণ পেয়েছি।

     বাংলাদেশে ছবি তোলার অভিজ্ঞতা আনন্দদায়ক হলেও, ১৫০ লাখ মানুষের ঢাকা শহরে গরমের সময়টা মাঝে মাঝে ছিলো অন্যন্ত কঠিন। লোডশেডিং-এর ঝামেলা পোহাতে হয়েছে অহরহ।

     তবে ফিরে তাকালে বাংলাদেশের মানুষের কথাই স্মরণ হয় তাদের অর্ন্তিহিত শক্তি, দৃঢ়তা এবং উচ্ছলতা আমার মনে গেঁছে আছে মুগ্ধ বিস্ময় নিয়ে।

 

মাহমুদুল হাসান

স্যান হোজে, ক্যালিফোর্নিয়া।

 

ছবিঃ

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.