Home | About Us | Porshi Team | Porshi Patrons | Event Announcement | Contact Us
হোমপেজ পুরনো সংখ্যা: সূচীপত্র  মূল রচনাবলীঃ  ||  ৯ম বর্ষ ৪র্থ সংখ্যা শ্রাবন ১৪১৬ •  9th  year  4th  issue  Jul-Aug  2009 পুরনো সংখ্যা
প্রবাসী বিনিয়োগকারীর সাথে আলাপচারিতা Download PDF version
 

বাংলাদেশে প্রবাসী বিনিয়োগ

প্রবাসী বিনিয়োগকারীর সাথে আলাপচারিতা

[এনায়েতুর রহমান এহসান রশীদ দুজনেই যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালী থেকে দীর্ঘদিন যাবৎ বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরণের বিনিয়োগ নিয়ে পরীক্ষা-নিরিক্ষা করে আসছেন। এ বিষয়ে তাঁদের সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পড়শীর মাহমুদুল হাসান সাবির মজুমদার।]

এনায়েতুর রহমান

প্ল্যাজন্টন, ক্যালিফোর্নিয়া

 

পড়শী: প্রবাসী হিসেবে আপনি কতদিন ধরে এবং কিভাবে বাংলাদেশে বিনিয়োগের সঙ্গে জড়িত?

এনায়েতুর রহমান: গত কয়েক বছর ধরে আমি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছি। প্রধান বিনিয়োগের স্থান হোল IT এলাকায়। এছাড়া Real Estateকিছু বিনিয়োগ করেছি।

পড়শী: বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সুবিধা এবং অসুবিধাগুলো কি?

এনায়েতুর রহমান:  অনেকেই Govt Bond কিনেছে। প্রবাসীদের জন্যে এটা ভালো বিনিয়োগের সুবিধা। এছাড়া IT, Alternative energy-তে ভালো সুযোগ আছে।

পড়শী: বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?

এনায়েতুর রহমান:  নিজের উদ্যোগেই সব করতে হবে। আমার বিনিয়োগ সামান্য। বড় আকারের বিনিয়োগ হলে Board of Investment হয়ত সহায়তা দেবে।

পড়শী: প্রবাসীদের বিনিয়োগে আকৃষ্ট করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের করণীয় কি? অন্যান্যদের (যেমন, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ, স্থানীয় ব্যবসায়ী ...) ভূমিকা কি হতে পারে?

এনায়েতুর রহমান:  বাংলাদেশ সরকার বিদেশের দূতাবাসের মাধ্যমে এবং দেশে বিশেষ অফিস খুলে প্রবাসীদের বিনিয়োগের সুযোগ করে দিতে পারে।

পড়শী: কোন কোন সেক্টরে প্রবাসীদের বিনিয়োগে আগ্রহ বেশি এবং কেন?

এনায়েতুর রহমান:  Power Sector-এ অনেকে বিনিয়োগ করতে চেয়েছে, কিন্তু নানা জটিলতার জন্য Real State, Wage Earner Bond-এর দিকে অনেকেই ঝুকেছেন। এর কার হোল ঝুকি কম এবং লাভ সহজে পাওয়া যায়।

পড়শী: উত্তর আমেরিকা প্রবাসীরা বিনিয়োগে কিভাবে অংশ নিচ্ছে?

এনায়েতুর রহমান:  উত্তর আমেরিকা প্রবাসীরা বিশেষ করে New York থেকে অনেকে বিনিয়োগের প্রস্তাব নিয়ে যাচ্ছেন। এটাকে আরো organized করলে অনেক ভালো ফল পাওয়া যাবে।

পড়শী:  বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশগুলো (যেমন, ভারত) থেকে এ ব্যাপারে আমাদের শিক্ষণীয় কি আছে?

এনায়েতুর রহমান:  ভারত আমাদের তুলনায় অনেক এগিয়ে আছে। International Company ভারতে বিনিয়োগ করাতে সেদেশের চেহারা অনেক পাল্টে গেছে। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন করতে হবে। Science এবং Math-এর প্রতি জোর দিতে হবে। সরকারীভাবে প্রবাসী এবং বিভিন্ন দেশকে বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে হবে। আমাদের IT infrastructure develop করতে হবে। Internet Bandwidth-এর দাম কমাতে হবে। Power supply অনেক stable হতে হবে। তবেই ভারতের মত অনুকল পরিবেশ তৈরী হবে। ¨

 

এহসান রশীদ

স্যান রমন, ক্যালিফোর্নিয়া

 

পড়শী: প্রবাসী হিসেবে আপনি কতদিন ধরে এবং কিভাবে বাংলাদেশে বিনিয়োগের সঙ্গে জড়িত?

এহসান রশীদ: যদিও আজ ৩০ বছর ধরে বিদেশে বাস করছি কিন্তু নিজেকে কখনো বিদেশী ভাবতে পারিনি। আমার প্রথম সুযোগ আসে ১৯৯৯ সালে যখন আমি Com21 বলে সিলিকন ভ্যালির একটি কম্পানিতে Access Business-এর জেনারেল ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত। Com21 তখন ব্রডব্যান্ড service দিয়েছে Citecho (Grameen Cybernet)-কে যারা তখন বাংলাদেশে মাত্র broadband access-এর জন্য কাজ শুরু করেছিল। আমি তখন বাংলাদেশের সাথে এই ব্যবসায়িক সম্পর্কের সুযোগটি একেবারেই ছাড়িনি। আমি Com21-এর সাথে এখন আর নেই, তবে দশ বছর আগে আমার তৎকালিন কর্মকর্তাদের সাথে বাংলাদেশে বিনিয়োগ নিয়ে যুদ্ধের কথা এখনো মনে আছে। দশ বছর পরে এখনো আমি বাংলাদেশে বিভিন্ন বিনিয়োগের কথাই ভাবছি। বর্তমানে বাংলাদেশে alternative energy নিয়ে কিছু করার জোর চেষ্টা চালাচ্ছি।

পড়শী: বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সুবিধা এবং অসুবিধাগুলো কি?

এহসান রশীদ: বিনিয়োগকারীদের জন্য সবচেয়ে বড় আকর্ষ হলো technology Energy খাতে একটা বড় return-এর সম্ভাবনা খুব বেশী। অসুবিধার মধ্যে রয়েছে বিনিয়োগকারীদের অনিহা এবং অনির্দিষ্ট পরিবেশের ভয়। যেখানে রয়েছে রাজনৈতিক গন্ডগোলের সম্ভাবনা, হরতাল, এবং সরকারের policy বিবর্তন। বিনিয়োগকারিরা এ সমস্ত ভয়ে পিছিয়ে থাকেন কিন্তু সবাই মিলে সাহস করলে রাজনৈতিক গোলযোগের আবহাওয়া পরিবর্তন হতে বাধ্য।

পড়শী: বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?

এহসান রশীদ: বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশীরা আসলে বাইরের বিনিয়োগকারীদের ব্যাপারে ভিষভাবে আগ্রহী এবং উৎসাহী। বাংলাদেশীরা অর্থনৈতিক উন্নতীর দিকে অধীর আগ্রহে চেয়ে আছে। তারা খাটতে রাজী, ঝুকি নিতে পিছপা নয় মোটেও। বাইরের বিনিয়োগকারীদের positive attitude থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশের ব্যবসায়িক কাঠামোতে কিছু সমস্যা রয়েছে। আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি- বাংলাদেশে বিদেশী বিনোয়োগের ক্ষেত্রে কি কি হচ্ছে তার জন্য পর্যাপ্ত প্রচারের অভাব। যারা সেখানে সার্থকতার সাথে বিনিয়োগ করেছেন তাদের success storyগুলো আর বেশী করে তুলে ধরা প্রয়োজন। যারা সার্থক হয়েছেন তারাই তাদের ভাষায় বলতে পারবেন কিভাবে বাংলাদেশের অপ্রতিকুল ব্যবসায়িক পরিবেশে এগিয়ে যেতে হবে ধাপে ধাপে। বিভিন্ন ব্যাবসায়িক policy পর্যায়ে যে সমস্ত বাধা রয়েছে সেগুলোকে উতরাবার নিয়ম না জানা থাকলে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা এই অর্থনৈতিক অবস্থায় কোনে বিনিয়োগ আগ্রহী হবেন না।

পড়শী: প্রবাসীদের বিনিয়োগে আকৃষ্ট করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের করণীয় কি? অন্যান্যদের (যেমন, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ, স্থানীয় ব্যবসায়ী ...) ভূমিকা কি হতে পারে?

এহসান রশীদ: বাংলাদেশের ব্যবসা-সংক্রান্ত সরকারী policy guidelineগুলো সত্যিকার অর্থে কার্যকরী করা অতটা সহজ নয়। আমার জানা মতে সরকারী কোনো organization নেই যারা কিনা এসব বাইরের বিনিয়োগকারীদের সেই দুর্গম পথটি বাতলে দেবে। বাংলাদেশের সরকার বঝে World Bank, Asian Development Bank-এর বিনিয়োগ বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে। ব্যাক্তিগত উৎযোগ যারা নিতে চান তাদের জন্য organized কোন নির্দেশনা নেই। ব্যবসাক্ষেত্রে যারা আগে সার্থক হয়েছে তাদের উদাহরণগুলো নিয়ে সামনে এগিয়ে যায়া।

পড়শী: কোন কোন্ সেক্টরে প্রবাসীদের বিনিয়োগে আগ্রহ বেশি এবং কেন?

এহসান রশীদ: বিদেশী বিনিয়োগকারীদের মধ্যে টেলিকম সেক্টর বিশেষ করে wireless technologyতে বাংলাদেশীরা উৎসাহী। বাংলাদেশে চারটি venture বেশ সার্থক হয়েছে তাদের মধ্যে গ্রামীন ফোন, AKTEL, Banglalink এবং CitycellCitycell কিছুদিন আগেই বহুটাকার investment পেয়েছে জাপানের NTTDOCOMO থেকে।

পড়শী: উত্তর আমেরিকা প্রবাসীরা বিনিয়োগে কিভাবে অংশ নিচ্ছে?

এহসান রশীদ: উত্তর আমেরিকাতে হাতে গোনা কয়েকটি ভেনচার ক্যাপিটালিষ্ট ফার্ম যারা কিনা বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী। বেশীরভাগ উত্তর আমেরিকার ফান্ড যেগুলো বাংলাদেশে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। যেসব দেশগুলো সত্যিকার ভাবে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে তাদের মধ্যে Japanবং Europe-এর কিছু দেশের কথা উল্লেখ করা যায়।

পড়শী:  বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশগুলো (যেমন, ভারত) থেকে এ ব্যাপারে আমাদের শিক্ষণীয় কি আছে?

এহসান রশীদ: অবশ্যই। Indiaবং China দেখিয়ে দিয়েছে কিভাবে দেশের investment friendly policy এবং

policy মুল্যায়ন ও implementation দেশকে অর্থনৈতিক সচ্ছলতা এনে দিচ্ছে। এই পলিসিগুলোর জন্য শুধুমাত্র বিদেশী বিনিয়োগকারীরা যে মুনাফার জন্য ব্যবসা খুজছে তা নয়, তারা রপ্তানীতেও বিশ্বাসী এবং দেশের পন্যের উন্নতিতে আগ্রহী। তার একটি বাস্তব উদাহর হচ্ছে সরকারী photovoltaic বিনিয়োগ কিভাবে Chinaকে গত দশ বছরে Suntech power, LDK Solar ইত্যাদি উপহার দিয়েছে বর্তমানে সেটা China- solar power সেক্টরে সবচেয়ে বড় নাম। শুধু তাই নয় global energy industry-তে এখন সেটা স্বনামধন্য

 

সাক্ষাৎকার গ্রহণ : মাহমুদুল হাসান এবং সাবির মজুমদার।

 

মন্তব্য:
এ সপ্তাহের জরীপ

প্রেসিডেন্ট ওবামা ঠিকমত দেশ চালা্চ্ছেন।

 
Code of Conduct | Advertisement Policy | Press Release | Hard Copy Archive
© Copyright 2001 Porshi. All rights reserved.